শ্রীদেবী মারা গেছেন দুই দিনও হয় নাই, এ কি কাণ্ড শ্রীদেবী কন্যার ! নিন্দার ঝড় নেট দুনিয়ায়

দিনটা ছিল ২৪ ফেব্রুয়ারি। শ্রীদেবীর প্রয়াণের খবরটা সবাইকে চমকে দিয়েছিল। কেউ যেন বিশ্বাসই করতে পারছিলেন না সুস্থ-স্বাভাবিক ‘রূপ কি রানি’ চিরতরে বিদায় নিয়েছেন। সেই ঘটনার রেশ এখনও কাটেনি। আর তারই মধ্যে গত ৬ মার্চ মেয়ে জাহ্নবী কাপুর পা দিয়েছেন ২১ বছরে। মা’কে ছাড়াই কাটাতে হবে জন্মদিনটা। বিষয়টা সত্যিই যন্ত্রণাদায়ক। এমনটাই ভেবেছিলেন সকলে।

সেদিন জাহ্নবী নিজেও সোশ্যাল মিডিয়া কিছু পোস্ট করেননি। কিন্তু দিদি অনশুলা কাপুরের পোস্টে অনেকটাই স্পষ্ট হয়ে গেল কীভাবে জন্মদিনটা কেটেছে শ্রীদেবী-কন্যার। আর সেই ছবি পোস্ট হওয়ার পর থেকেই নেটদুনিয়ায় সমালোচনার ঝড় উঠেছে।বনি কাপুর-কন্যা অনশুলা যে ছবিটি পোস্ট করেছেন, সেখানে দেখা যাচ্ছে, একটি নয়, জাহ্নবীর জন্মদিনে

ক্যামেরার দিকে তাকিয়ে পোজও দিয়েছেন। তবে কি মায়ের মৃত্যু শোক এত তাড়াতাড়ি কাটিয়ে ফেলতে পেরেছেন? এমন প্রশ্নই তুলেছেন নেটিজেনরা। আর যদি জাহ্নবীর মুখে হাসি ফোটানোর জন্য বার্থডে পার্টির বন্দোবস্ত হয়েই থাকে, তাহলেই বা তা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করার মানে কী? তবে কি কাপুর পরিবার শ্রীদেবীর শূন্যতা কাটিয়ে উঠেছে? এভাবেই সোশ্যাল সাইটে ছবিটি নিয়ে চলছে হাসি-মশকরা ও সমালোচনা।

এক নেটিজেন লিখেছেন, মাত্র ১০ দিনের মধ্যেই বার্থডে সেলিব্রেট করতে হল? মায়ের কাজের জন্য কি ১৩টা দিনও অপেক্ষা করা গেল? কেউই চায় না দীর্ঘদিন ধরে কাপুর পরিবারের চোখে জল দেখতে। কিন্তু অন্তত শোকের রেশটা কাটার সময়টুকু তো দেওয়াই যেত। তাই এই সময় এমন ছবি সত্যিই বেমানান।

অন্য এক নেটিজেন হতাশার সুরেই বলছেন, “বালাই ষাট, কিন্তু কোনও কাছের মানুষকে হারিয়ে সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই এভাবে হাসতে পারতাম না, যেভাবে জাহ্নবীকে দেখা যাচ্ছে।” অনেকের মতে আবার, জাহ্নবী, সোনমরা সেলিব্রিটি। তাঁদের দেখে অনেকেই অনুপ্রেরণা পান। তাই শোকের আবহে এমন সেলিব্রেশনের ছবি কোথাও তাঁদের ভাবমূর্তিই ক্ষুণ্ন করে। পুরো বিষয়টাকে ইচ্ছা করলেই গোপন রাখা যেত।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.